শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
রাজশাহীতে দুর্নীতি জালিয়াতি বদলি বাণিজ্যে মাউশির ডিডি রাজশাহীতে শুটারগান ও ফেন্সিডিলসহ অস্ত্র কারবারী গ্রেপ্তার চারঘাটে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৬ প্রার্থী কাস্টমস আইন, ২০২৩ বাস্তবায়নকল্পে চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রশিক্ষণ কর্মশালা সরিষাবাড়ীতে নন গ্রুপ কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত চক্ষু হাসপাতালের সেবার মান বৃদ্ধিতে অত্যাধুনিক এ্যালকোন ফ্যাকো মেশিন সংযোজন নাটোর সদর থেকে ২৪ হাজার টাকা জাল নোটসহ স্বামী-স্ত্রী কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫ রাজশাহীর চারঘাট উপজেলা প্রেসক্লাবে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত সরিষাবাড়ীতে শ্রেষ্ঠ সমবায়ী নির্বাচিত হলেন সাংবাদিক এম এ রউফ নিয়ামতপুরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জামানত হারাচ্ছেন ৬ প্রার্থী

সরনজাই স্কুল এখন দু হিরক রাজার কব্জায়

দেলোয়ার হোসেন সোহেল
প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন

দেলোয়ার হোসেন সোহেল

এক সময় ছিলেন জামায়াতের দাপুটে নেতা খোলস পাল্টিয়ে বিএনপিতে যোগদিয়ে সহকারী শিক্ষকের চাকরি বাগিয়ে নিয়েছেন। পরে আবারো খোলস পাল্টিয়ে ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক হয়ে পদাধিকার বলে হয়েছেন স্কুল পরিচালনা কমিটির সম্পাদক। প্রায় ২০ বছর যাবৎ সরনজাই উচ্চ বিদ্যালয়ের অঢেল সম্পত্তি যার মধ্যে রয়েছে তিন ফসলি জমি বড় বড় পুকুর ও দোকান সব মিলিয়ে সরনজাই স্কুলের বর্তমান প্রতি বছরের আয় ২৫ লাখ টাকা। সেই হিসাবে প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নানের আমলে প্রায় আড়াই কোটি টাকার আয় হয়েছে এই স্কুলটির। এত টাকা কি উন্নয়ন করেছে কমিটি.. এই স্কুলের জন্য..? ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের অভিযোগ বিদ্যালয় কমিটির বর্তমান সভাপতি আ”লীগ নেতা আবু সাইদ ও প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নান নিজ পরিবারের মতো চালাই এই স্কুল প্রতিষ্ঠানের, হিসাব আর কাকে কি দিবেন বলে ক্ষোভ:প্রকাশ করেন তারা।

কোটি কোটি টাকার হিসাব পড়ে আছে দুই হীরক রাজা আবু সাইদ ও আব্দুল হান্নানের কাছে তারা জনসাধারণ ও কমিটির সদস্যদের জবাবদিহিতা করেন না জবাব চাইলেই উল্টো হুমকি ধামকির শিকার হন তারা। এমনকি হিসেব চাওয়ায় বিদ্যালয়ের জমি দাতার পরিবারের সদস্যদের অসম্মানিত ও কমিটির সদস্য পদ বাতিল করেন এই দুই রাজা। উল্লেখ্য সরনজাই বাজারের একটি মার্কেটের সামনে সরকারের অধিগ্রহণকৃত জায়গায় টিনের অবৈধ স্থাপণা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নান এমনকি মার্কেটে যাওয়া আসার কোনো রাস্তা রাখা হয়নি। এ থেকে পরিত্রাণের আশায় মার্কেট মালিক আশরাফুল  ইসলাম বাদি হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং তানোর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। । এদিকে, ২০২৩ সালের ২০ জানুয়ারী তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পঙ্কজ চন্দ্র দেবনাথ এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য নোটিশ দিয়েছেন। কিন্ত্ত আব্দুল হান্নান নানা অজুহাতে কালক্ষেপণ করে আসছে। এখন উল্টো সরকারি কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক” উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও (ভূমি) এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন আব্দুল হান্নান।
এবিষয়ে জেলা প্রসাশকের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এবিষয়ে আমার জানা নেই তবে এমনটি হলে আদালতের মাধ্যমে মামলার মোকাবেলা করা হবে।


আরো পড়ুন