শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন

রাজশাহীতে সিআইডি পরিচয়ে যুব অধিকার পরিষদ নেতাকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

প্রথম পাতা
প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন
সিআইডি

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সদস্য পরিচয়ে রাজশাহী জেলা যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি আবদুল ওয়াকিলকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে বাসা থেকে ওয়াকিলকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ওয়াকিলের কোনো খোঁজ পাননি বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

আবদুল ওয়াকিলের বাড়ি রাজশাহী মহানগরের মতিহার থানার ডাঁশমারী মহল্লায়। তাঁর বাবার নাম আবদুল হামিদ। ওয়াকিল স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্টেন (কেজি) স্কুলের শিক্ষক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিআইডির রাজশাহী জেলা ও মহানগরের বিশেষ পুলিশ সুপার আবদুল জলিল বলেন, ‘গত এক সপ্তাহে আমরা কাউকে গ্রেপ্তার করিনি। আবদুল ওয়াকিলকেও আমরা তুলে আনিনি। অন্য কেউ তুলে নেওয়ার সময় সিআইডির নাম বলতে পারে।’

ওয়াকিলের স্ত্রী শ্যামলী খাতুন বলেন, বৃহস্পতিবার ভোরে সাদাপোশাকে সাত-আটজন ব্যক্তি তাঁদের বাসায় যান। তাঁরা অটোরিকশাযোগে এসেছিলেন। ওয়াকিলকে নিয়ে তাঁরা অটোরিকশায় ফিরেছেন। যাঁরা বাসায় এসেছিলেন তাঁরা নিজেদের সিআইডি সদস্য হিসেবে পরিচয় দিয়েছিলেন। স্কুলে ঝামেলার কথা জানিয়ে তুলে নেওয়া হলেও সেখানে কোনো ঝামেলা হয়নি।

পরিবারের সদস্যরা বৃহস্পতিবার সারা দিন সিআইডি কার্যালয়, থানাসহ অন্যান্য স্থানে খোঁজ নিয়েও ওয়াকিলের কোনো সন্ধান পাননি। শুক্রবার বিষয়টি গণমাধ্যমকর্মীদের জানিয়েছেন গণ অধিকার পরিষদের উচ্চতর পরিষদের সদস্য ও গণমাধ্যম সমন্বয়ক আবু হানিফ। তিনি বলেন, আবদুল ওয়াকিল সম্প্রতি একটি দেশের বিরুদ্ধে সামাজিক মাধ্যমে সোচ্চার ছিলেন। রাজনৈতিক কারণে হয়রানি করতে তাঁকে তুলে নেওয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

ওয়াকিল নিখোঁজ থাকলেও আজ শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত এ বিষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়নি। প্রয়োজন হলে জিডি করবেন বলে জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী শ্যামলী খাতুন।

নগরের মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মো. মোবারক পারভেজ বলেন, ‘ওয়াকিল আমাদের কাছে নেই। আমরা তাঁর বিষয়ে কিছু জানি না। নিখোঁজের বিষয়ে কোনো জিডিও হয়নি। পরিবারের পক্ষ থেকে জিডি হলে আমরা তাঁর সন্ধান পেতে কাজ করতে পারি।’

প্রথম আলো


আরো পড়ুন